ময়ূরাক্ষী – হুমায়ূন আহমেদ

ময়ূরাক্ষী – হুমায়ূন আহমেদ

ময়ূরাক্ষী – হুমায়ূন আহমেদ

ফ্লাপে লিখা কথা
ময়ূরাক্ষী নদীকে একবারই আমি স্বপ্নে দেখি। নদীটা আমার মনের ভেতর পুরোপুরি গাঁথা হয়ে যায়। অবাক হয়ে লক্ষ করি কোথাও বসে একটু চেষ্টা করলেই নদীটা আমি দেখতে পাই। তারজন্যে আমাকে কোনো কষ্ট করতে হয় না। চোখ বন্ধ করতে হয় না, কিছু না। একবার নদীটা বের করে আনতে পারলে সময় কাটানো কোনো সমস্যা নয়। ঘন্টার পর ঘন্টা আমি নদীর তীরে হাঁটি। নদীর হিম শীতল জলে পা ডুবিয়ে বসি। শরীর জুড়িয়ে যায়। ঘূঘুর ডাকে চোখ ভিজে ওঠে।

ভূমিকা
হিমুকে নিয়ে কতগুলি বই লিখেছি নিজেও জানি না। মন মেজাজ খারাপ থাকলেই হিমু লিখতে বসি । মন ঠিক হয়ে যায়। বেশি লেখার ফল সব সময় শুভ হয় না। আমার ক্ষেত্রেও হয় নি। অনেক জায়গাতেই ল্যাজে গোবরে করে ফেলেছি। হিমুর পাঞ্জাবির পকেট থাকে না অথচ একটা বই-এ লিখেছি সে পকেট থেকে টাকা বের করল। হিমুর মাজেদা খালা এক বই-এ হয়ে গেলো মাজেদা ফুপু। তবে হিমু যে ঠিক আছে তাতেই আমিখুশি । হিমু ঠিক আছে, হিমুর জগৎ ঠিক আছে। তার বয়স বাড়ছে না। সে বদলাচ্ছে না। এই আনন্দ সংবাদ দিয়ে ভূমিকা শেষ করছি। সব হিমুকে বন্দি করে যে প্রকাশক বিশাল হিমু সমগ্র বের করলেন তাকে (মনিরুল হক, অনন্যা) ধন্যবাদ।​

হিমু সিরিজের প্রথম বই-
‘ময়ূরাক্ষী’
হুমায়ূন আহমেদ​

পৃষ্ঠা- ৭৭
সাইজ- ৮৫৬ কিলোবাইট
প্রকাশকাল- ১৯৯০
প্রকাশনী- অনন্যা
হাই কোয়ালিটি

Download Pdf

Similar titles

বৈতালিক – নারায়ণ গঙ্গোপাধ্যায়
বিশ্ব-জিজ্ঞাসা – হিরণ্ময় বন্দ্যোপাধ্যায়
ত্রাতুলের জগৎ – মুহম্মদ জাফর ইকবাল
হারাধনের দুঃখ – শিবরাম চক্রবর্তী
দাদা ভগবান কে? – দাদা ভগবান
পাক সার জমিন সাদ বাদ – হুমায়ুন আজাদ
ক্ষমতার উৎস – প্রফুল্ল রায়
রাক্ষস খোক্কস এবং ভোক্কস – হুমায়ূন আহমেদ
বৃহন্নলা – হুমায়ূন আহমেদ
দুর্গেশনন্দিনী – বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়
প্রজাপতি – সমরেশ বসু
নয়নপুরের মাটি – সমরেশ বসু

Leave a comment

Name *
Add a display name
Email *
Your email address will not be published
Website