চৈত্রের দ্বিতীয় দিবস – হুমায়ূন আহমেদ

চৈত্রের দ্বিতীয় দিবস – হুমায়ূন আহমেদ

Your rating: 0
9.5 2 votes
what going on?

চৈত্রের দ্বিতীয় দিবস pdf বাংলা বই। চৈত্রের দ্বিতীয় দিবস – হুমায়ূন আহমেদ এর লেখা একটি বাংলা জনপ্রিয় উপন্যাস বই। আমাদের টিম তার “চৈত্রের দ্বিতীয় দিবস” বইটি সংগ্রহ করেছে এবং আপনাদের জন্য হুমায়ূন আহমেদ এর এই অসাধারণ বইটি শেয়ার করা হয়েছে ।  আপনারা খুব সহজের বইটি পড়ে ফেলতে পারবেন যে কোনো মুহূর্তে। আপনার পছন্দের যে কোনো বই খুব সহজেই আমাদের সাইটে পেয়ে যাবেন।

বইয়ের বিবরণ

  • বইয়ের নামঃ চৈত্রের দ্বিতীয় দিবস
  • লেখকঃ হুমায়ূন আহমেদ
  • বইয়ের ধরণঃ উপন্যাস
  • প্রকাশকঃ অনন্যা
  • প্রকাশিতঃ ২০০২
  • পাতা সংখ্যাঃ ১৯৩ টি
  • সাইজঃ ১২ এমবি

চৈত্রের দ্বিতীয় দিবস বই রিভিউঃ

হুমায়ূন আহমেদ এর চৈত্রের দ্বিতীয় দিবস বাংলা বইটি সম্পুর্ণ ফ্রীতে ডাউনলোড এবং পড়তে পারবেন। আমরা হুমায়ূন আহমেদ এর চৈত্রের দ্বিতীয় দিবস বই এর পিডিএফ কপি সংগ্রহ করেছি এবং আপনাদের মাঝে তা শেয়ার করছি। উপন্যাসটির শুরু ফরহাদ নামের একটি ছেলেকে নিয়ে। ফরহাদ একটা ওষুধ কোম্পানির জুনিয়র রিপ্রেজেন্টেটিভ। আর এই গল্পের নায়িকা হলেন আসমানি নামের একটা মধ্যবিত্ত ঘরের মেয়ে। তাদের মধ্যে গরে উঠে একটা ভালবাসার মধুর সম্পর্ক যা ভালই চলছিল। একটা সময় তারা বিয়ে করবে বলে ঠিক করে আর তখন থেকেই শুরু হয় ট্রাজেডি ফরহাদের চাকরী চলে যাওয়া, বাড়ি হাতছাড়া হওয়া, আসমানি অসুস্থ সব মিলিয়ে হৃদয় কাড়া একটা উপন্যাস।

নিচের লিংক থেকে ১২ এমবির বইটি ডাউনলোড করে কিংবা অনলাইনে যেকোন সময় হুমায়ূন আহমেদ এর এই জনপ্রিয় উপন্যাস এর বইটি পড়ে নিতে পারবেন।

ডাউনলোড  /  অনলাইনে পড়ুন

হুমায়ূন আহমেদ ছিলেন একজন বাংলাদেশী ঔপন্যাসিক, ছোটগল্পকার, নাট্যকার এবং গীতিকার, চিত্রনাট্যকার ও চলচ্চিত্র নির্মাতা। তিনি বিংশ শতাব্দীর জনপ্রিয় বাঙালি কথাসাহিত্যিকদের মধ্যে অন্যতম যাকে বাংলাদেশের স্বাধীনতা পরবর্তী অন্যতম শ্রেষ্ঠ লেখক বলেও গণ্য করা হয়। হুমায়ূন আহমেদ ১৯৪৮ খ্রিষ্টাব্দের ১৩ নভেম্বর তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের ময়মনসিংহ জেলার অন্তর্গত নেত্রকোণা মহুকুমার মোহনগঞ্জে তার মাতামহের বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। হুমায়ূন আহমেদ রচিত প্রথম উপন্যাস নন্দিত নরকে, ১৯৭২ সালে প্রকাশিত হয়। সত্তর দশকের এই সময় থেকে শুরু করে মৃত্যু অবধি তিনি ছিলেন বাংলা গল্প-উপন্যাসের অপ্রতিদ্বন্দ্বী কারিগর। এই কালপর্বে তার গল্প-উপন্যাসের জনপ্রিয়তা ছিল তুলনারহিত। তার সৃষ্ট হিমু এবং মিসির আলি ও শুভ্র চরিত্রগুলি বাংলাদেশের যুবকশ্রেণীকে গভীরভাবে উদ্বেলিত করেছে। ২০১১-এর সেপ্টেম্বের মাসে সিঙ্গাপুরে ডাক্তারী চিকিৎসার সময় তার দেহে মলাশয়ের ক্যান্সার ধরা পড়ে। মলাশয়ের ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘ নয় মাস চিকিৎসাধীন ছিলেন। কৃত্রিমভাবে লাইভ সাপোর্টে রাখার পর ১৯শে জুলাই ২০১২ তারিখে তিনি নিউ ইয়র্কের বেলেভ্যু হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন।

Similar titles

দূরের বন্দর – প্রফুল্ল রায়
একটি সাইকেল এবং কয়েকটি ডাহুক পাখি – হুমায়ূন আহমেদ
চার অধ্যায় – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
হারিয়ে পাওয়া – সমরেশ বসু
দেনা পাওনা – শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়
রাজনীতিবিদগণ – হুমায়ুন আজাদ
অচিন পাখি – সুচিত্রা ভট্টাচার্য
উদ্ধার – সমরেশ বসু
সূর্যের দিন – হুমায়ূন আহমেদ
নাম লেখেছি ভালোবাসা – ইমদাদুল হক মিলন
ময়ূরাক্ষীর তীরে প্রথম হিমু – হুমায়ুন আহমেদ
দারুব্রহ্ম কথা – সৈয়দ মুস্তাফা সিরাজ

(1) comment

  • ratriডিসেম্বর 10, 2019জবাব

    nice

Leave a comment

Name *
Add a display name
Email *
Your email address will not be published
Website